এই সমস্ত কর্মকাণ্ড ফেসবুকে করলে ডেকে আনতে পারে বিপদ

ফেসবুকে যে সমস্ত

ফেসবুক নামক প্ল্যাটফর্মটিতে প্রতিনিয়তই আকস্মিক নানা রকমের ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। এছাড়াও ফেসবুকের মাধ্যমে সংগঠিত হচ্ছে নানা রকমের অপরাধ। অনেকেই প্ল্যাটফর্মটিতে …

Read more

মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট কি? মাইক্রো নিস সাইট সম্পর্কে পরিপূর্ণ আলোচনা

ব্লগ টপিক

যে বা যারা ব্লগিং এর সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন তারা মাইক্রো নিস ব্লগিং সম্পর্কে কিছুটা হলেও জেনেছেন? মাইক্রো নিস ব্লগিং আসলে কি? মাইক্রো নিস ব্লগিং থেকে আয় করা কি সম্ভব?

এছাড়াও আপনি যদি মাইক্রো নিস ব্লগার ওয়েবসাইট তৈরি করেন, তাহলে এই ওয়েবসাইটে কতটি কনটেন্ট আপলোড দিতে হয় এবং ওয়েবসাইট থেকে কত ডলার আয় করা সম্ভব?

মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট সংক্রান্ত এই সমস্ত প্রশ্নের জবাব আজকেরে আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনি পেয়ে যাবেন তাই জানতে হলে আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত দেখুন

মাইক্রো নিস ব্লগিং আসলে কি?

মাইক্রো নিস ব্লগিং হল কোন একটি টপিক এর উপরে একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে কিছু সংখ্যক কনটেন্ট আপলোড দেয়া; এই টপিকটি হতে পারে আগত কোন একটি বিশেষ দিন।

উদাহরণস্বরূপ আগামী মাসে যদি নতুন বছর শুরু হয়ে থাকে তাহলে আপনি এই নতুন বছর সম্পর্কে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেললেন; এবং আর্টিকেল পাবলিশ করা শুরু করলেন।

এক্ষেত্রে আপনি নতুন বছর সম্পর্কে বিভিন্ন স্ট্যাটাস, এসএমএস কিংবা পিকচার তৈরি করলেন এবং এগুলো আপনার ওয়েবসাইটে পাবলিশ করলেন।

দেখা গেল যে যখন নতুন বছর চলে আসলো,আর তখন এই সমস্ত টপিক নিয়ে আপনার ওয়েবসাইটে খুব বেশি পরিমাণে ভিজিটর আসা শুরু হলো এবং আপনার আর্নিং এর পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়ে গেল।

মূলত মাইক্রো নিস হলো নির্দিষ্ট টপিক এর উপরে একটি ব্লগ সাইট তৈরি করা এবং এতে নির্দিষ্ট পরিমাণ কনটেন্ট আপলোড দেয়া যার, ফলশ্রুতিতে খুব বেশি পরিমাণে ডলার আয় করা।

মাইক্রো নিস ব্লগসাইট কিভাবে তৈরি করে?

মাইক্রো নিস ব্লগার ওয়েবসাইট তৈরি করার ক্ষেত্রে প্রথমত আপনাকে যেকোন একটি নিস সিলেক্ট করে নিতে হয়; বলাবাহুল্য মাইক্রো নিস হলো একটি মাত্র niche নিয়ে আর্টিকেল পাবলিশ করার ব্লগ সাইট।

উদাহরণস্বরূপ আপনি যদি ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সমস্ত সেবা নিয়ে লিখতে চান, তাহলে ডাচ বাংলা ব্যাংক রিলেটেড একটি ডোমেইন ক্রয় করলেন এবং শুধুমাত্র ওই ব্যাংক রিলেটেড কনটেন্ট পাবলিশ করেন।

যেহেতু ব্যাংক রিলেটেড টপিক কোন এক সময় শেষ হয়ে যাবে এবং আপনাকে পরবর্তী সময় আর কোন আর্টিকেল পাবলিশ করতে হবে না তাই এটি একটি মাইক্রো নিস টপিক।

এছাড়াও আপনি চাইলে সামনে আগত কোন একটি বিশেষ দিনকে আপনার মাইক্রো নিস টপিক হিসেবে নির্বাচন করে নিতে পারেন এবং ওই রিলেটেড কনটেন্ট আপডেট দিতে পারেন।

তবে সব সময় একটি বিষয়ে লক্ষ্য রাখবেন আর সেটা হল যখন আপনি কোন একটি নিস সিলেক্ট করবেন তখন শুধুমাত্র জিনিস নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করবেন, তাহলে আপনি স্বল্প আর্টিকেলে আপনার মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট কমপ্লিট করতে পারবেন।

মাইক্রো নিস সাইটে কতটি আর্টিকেল লিখতে হয়?

একটি মাইক্রো নিস ওয়েবসাইটে খুব বেশি হলে 10-15 টি আর্টিকেল লিখেলেই সমস্ত কাজ সম্পাদন হয়ে যায়। এবং এই দশ পনেরো টি আর্টিকেল ই আপনার আর্নিং-এর পথ সহজ করে দেয়।

এরকম অনেক মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট রয়েছে যে সমস্ত ওয়েবসাইটগুলোতে 5-6 টি আর্টিকেল লেখার কোন টপিক খুঁজে পাওয়া যায় না। কিন্তু এই পাঁচটি আর্টিকেল এ হিউজ পরিমান ওয়েবসাইট ট্রাফিক আনতে সক্ষম।

মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট তৈরি করার পরে ওয়েবসাইটে কতটি কনটেন্ট পাবলিশ করবেন, তার পুরোপুরি নির্ভর করে আপনার নিস সিলেকশন এর উপর।

মাইক্রো নিস সাইট থেকে আয় সম্ভব?

একটি মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট তৈরি করার পরে যখনই আপনি এই সাইট থেকে পুরোপুরি সেটআপ করে নিবেন তখন এই সাইট থেকে আয় করা সম্ভব?

এছাড়াও আপনি যদি মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে চান তাহলে কি কি উপায়ে আপনি এই ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে পারবেন?

তাহলে জেনে রাখুন, একটি মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট থেকে আয় করা অবশ্যই সম্ভব এবং আপনি যদি ওয়েব সাইট থেকে আয় করতে চান তাহলে ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে আয় করতে পারেন।

এরকম ওয়েব সাইট থেকে আয় করার প্রধান হাতিয়ার হিসেবে আপনাকে গুগল এডসেন্স কে বেছে নিতে হবে।

আর কোন বিশেষ কারণে আপনি যদি অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল না পান, তাহলে এফিলিয়েট প্রোডাক্ট, শর্টলিঙ্ক কিংবা আরো যে সমস্ত উপায় রয়েছে তার মাধ্যমে আয় করতে পারেন।

মূলত যেভাবেই হোক আপনি মাইক্রো নিস সাইট থেকে বেশি পরিমানে আয় করতে পারেন; আর ইউনিক এবং ভ্যালিড কন্টাক্ট হলে গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল এর মাধ্যমে আয় এর কাজটি আরও বেশি সুগম হয়।

সাইটের আয়ুষ্কাল কত?

আপনি যদি মাইক্রো নিস ওয়েব সাইটে কাজ করেন তাহলে এই সাইটের আয়ুষ্কাল কত দিন হবে? এই ওয়েবসাইটে আপনি কতদিন ধরে কাজ করতে পারবেন এবং এটি কতদিন আপনাকে টাকা আয় করতে দিবে?

মূলত একটি মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট আয়ুষ্কাল খুব বেশি হলে 6 মাস হয়ে থাকে। তবে এরকম অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যে সমস্ত সাইটগুলো ১ মাসেই গুটিয়ে যায়।

উদাহরণস্বরূপ; আপনি যদি সামনে আগত ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ নিয়ে কোন একটি মাইক্রো নিস ওয়েবসাইট তৈরি করেন, তাহলে এর লিমিটেশন ততদিনই থাকবে যতদিন না ফিফা ওয়ার্ল্ডকাপ শেষ হয়ে যায়।

মূলত এর সমস্ত ওয়েবসাইটের আয়ুষ্কাল নির্ধারিত হবে আপনার নিস সিলেকশন এর উপরে; আশাকরি মাইক্রো নিস সম্পর্কে আপনি পুরোপুরি জেনে নিতে পেরেছেন।

গুরুত্বপূর্ণ এবং সেরা কিছু ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন এর লিস্ট |

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন

একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট কে অটোমেটিকলি মেইনটেন্স করার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস এর যে সমস্ত প্লাগিন রয়েছে; সে সমস্ত প্লাগিনগুলো আপনার সাইটের জন্য যথেষ্ট।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন এর মাধ্যমে ওয়ার্ডপ্রেস সাইটটিকে খুব ভালোভাবে মেনটেন করতে পারবেন এবং কোন সমস্যা হলে এই সমস্যা থেকে সহজেই উত্তোলন করতে পারবেন।

আর আজকের এই পোস্টটিতে মূলত আলোচনা করা হবে ওয়ার্ডপ্রেস এর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি প্লাগিন সম্পর্কে; যা একজন ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারী হিসেবে আপনার জানা অত্যাবশ্যকীয়।

Yoast SEO

আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটকে পুরোপুরি এসইও ফ্রেন্ডলি করে তোলার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস যে সমস্ত এসইও প্লাগিন বিদ্যমান রয়েছে সেগুলোর মধ্যে থেকেই Yoast SEO প্রথম স্থানে রয়েছে।

Yoast SEO প্লাগিন এর মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট এবং এর প্রত্যেকটি কনটেন্টকে পুরোপুরি এসইও ফ্রেন্ডলি করে গড়ে তুলতে পারবেন। যাতে করে এ সমস্ত কনটেন্ট গুলো গুগলে সহজে rank করবে।

এছাড়াও ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটের কনটেন্ট গুলোকে স্বল্প সময়ে গুগলে ইনডেক্স করার জন্য কিংবা অন্য যে কোন সার্চ ইঞ্জিনে ইনডেক্স করার জন্য Yoast SEO প্লাগিন অসাধারণ ভূমিকা পালন করে।

Yoast SEO প্লাগিনটি আপনি চাইলে আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট এ ফ্রিতে ইন্সটল করতে পারবেন এবং ফ্রি ভার্সনে আপনি সীমিত সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি যদি পুরোপুরি সমস্ত ফিচারস গুলো উপভোগ করতে চান তাহলে Yoast SEO প্লাগিন এর প্রিমিয়াম ভার্সন রয়েছে সেই প্রেমিয়াম ভার্শন টি ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

W3 Total Cache

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটের লোডিং স্পীড যদি খুব বেশি কম হয়ে থাকে তাহলে W3 total Cache প্লাগিনটি আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটের লোডিং স্পীড বাড়িয়ে তুলবে।

এই সমস্ত ক্যাশ প্লাগিনগুলো ওয়েবসাইটের মধ্যে থাকা বিভিন্ন অযাজিত বিষয়বস্তু গুলোকে আপনার ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিডের ক্ষেত্রে খারাপ ভূমিকা পালন করতে বাধা দেয়।

এছাড়াও আপনি যে হোস্টিং প্রোভাইডার কাছ থেকে হোস্টিং ক্রয় করেছেন সেই সমস্ত হোস্টিং প্লেনের রিসোর্স এর পরিমাণ কমিয়ে রাখতে W3 total Cache সহায়তা করবে।

Akismet anti-spam

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটের কমেন্ট সেকশনে খুব বেশি পরিমাণে স্প্যামিং-এর শিখার যদি আপনি হয়ে থাকেন তাহলে Akismet anty spam প্লাগিনটি ব্যবহার করতে পারেন।

এই প্লাগিনটি ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটের যে কমেন্ট সেকশন স্প্যামিং এর মোকাবেলা করতে পারবেন।

অর্থাৎ যে কেউ চাইলেই আপনার ওয়ার্ডপ্রেস কনটেন্টের কমেন্ট বক্সে কোন রকমের স্পামিং কমেন্ট করতে পারবে না; এই প্লাগিনটি এই সমস্ত কাজ গুলো অটোমেটিকলি করে দেবে।

WPForms

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটে কোন রকমের ফরম তৈরি করার ইচ্ছা থাকলে আপনি WPForms প্লাগিন এর মাধ্যমে এই কাজটি খুব সহজেই করতে পারবেন।

ওয়েবসাইটের এরকম অনেক বিষয়াদি রয়েছে যেগুলো বিভিন্ন ফরম ফিলাপ করার মাধ্যমে করতে হয়। এছাড়াও আপনি যদি ম্যানুয়ালি এই সমস্ত ফোরামগুলো তৈরি করেন, তাহলে এই কাজগুলো করতে খুব বেশি সময় প্রয়োজন হয়।

WPForms এর মাধ্যমে আপনি সহজেই এই কাজটি করতে পারবেন; তাই আপনি যদি ফর্ম তৈরী করতে চান তাহলে এই প্লাগিনটি ব্যবহার করুন।

SeedProd

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটে আপনি যদি ল্যান্ডিং পেজ বিল্ড আপ করতে চান; তাহলে SeedProd plugin এর মাধ্যমে এই কাজটি আপনি সহজেই করতে পারবেন।

এই প্লাগিন এর মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটকে খুব সহজভাবেই কাস্টমাইজ করতে পারবেন এবং ম্যানুয়ালি ডিজাইন যুক্ত করতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি যদি আপনার ওয়েব সাইটের হোম পেইজের ডিজাইন করতে চান এবং কোনরকমে কোডিং ধারণা ছাড়াই বিভিন্ন রকমের ল্যান্ডিং পেজ তৈরী করতে চান; তাহলে এই প্লাগিনটি ব্যবহার করতে পারেন।

UpdraftPlus

আপনি যদি প্রতিদিন আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটের ব্যাকআপ নিতে চান, যাতে করে ওয়েবসাইটটি সার্ভার থেকে ডিলিট হয়ে গেলে পুনরায় এটিকে রিস্টোর করতে পারেন তাহলে UpdraftPlus প্লাগিনটি ব্যবহার করতে পারেন।

UpdraftPlus প্লাগিন এর মাধ্যমে আপনি প্রতিদিন আপনার ওয়েব সাইটের ব্যাকআপ নিতে পারবেন; যাতে করে আপনার সাইটের রিসোর্স ডিলিট হয়ে গেলে এটি পুনরায় ইনস্টল করতে পারেন।

এছাড়াও একটি সার্ভার থেকে অন্য একটি সার্ভারে আপনি যদি আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট migrate করতে চান তাহলে আপনার সাইটের ব্যাকআপ নেওয়া খুবই জরুরী।

একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব সাইটকে ভালোভাবে কাস্টমাইজ এবং যাবতীয় কাজ গুলো সহজেই করার জন্য যে সমস্ত প্লাগিন আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট ইন্সটল করা প্রয়োজন সেগুলো সম্পর্কে উপরে আলোচনা করা হলো।

এন্ড্রয়েড ফোনের সেরা পাঁচটি সফটওয়্যার |

এন্ড্রয়েড ফোনের সেরা পাঁচটি সফটওয়্যার |

আপনার যদি একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকে থাকে এবং এন্ড্রয়েড ফোনের মধ্যে আপনি যদি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সমস্ত অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস ডাউনলোড করে রেখে দিতে চান তাহলে এই পোষ্ট টি আপনার জন্য প্রযোজ্য।

আজকের এই পোস্টটিতে আলোচনা করা হবে অ্যান্ড্রয়েড ফোনের সর্বশ্রেষ্ঠ কিছু সফটওয়্যার সম্পর্কে। যে সমস্ত সফটওয়্যার একজন এন্ড্রয়েড ব্যবহারকারী হিসেবে আপনার ফোনে ইন্সটল করা বাধ্যতামূলক।

1Weather

আপনার আশেপাশের আবহাওয়া সংবাদ এবং পরবর্তী সময়ে আবহাওয়া কি রকম হতে পারে সেই সম্পর্কে আপনি যদি অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকে জানতে চান; তাহলে 1Weather অ্যাপসটি একটি প্রয়োজনীয় এপস।

এই অ্যাপসটি হলো একটি ফ্রি অ্যাপস যার মাধ্যমে আপনি সর্বশেষ আবহাওয়ার সংবাদ সম্পর্কে অবহিত হতে পারবেন এবং পূর্বে থেকে সতর্ক অবস্থানে থাকতে পারবেন।

মূলত আবহাওয়ার সংবাদ নোটিফিকেশন আকারে জানার জন্য এবং এই সংক্রান্ত বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা উপভোগের জন্য অবশ্যই 1Weather অ্যাপসটি আপনার ফোনে ইন্সটল করে রেখে দিবেন।

Google Drive

অনলাইনে আপনি যদি একটি ফ্রি ষ্টোরেজের মাধ্যমে আপনার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জিনিস গুলো পুরোপুরি সুরক্ষিত রাখতে চান ; তাহলে Google Drive আপনার জন্য এক অনন্য অ্যাপস।

গুগোল ড্রাইভ এর মাধ্যমে আপনি ফ্রিতে প্রায় 15 জিবি স্টোরেজ পাবেন। যে স্টোরেজের মধ্যে আপনি চাইলে অডিও, ভিডিও, ফটো কিংবা যে কোন ডকুমেন্ট সুরক্ষিতভাবে রাখতে পারবেন।

এছাড়াও আপনার নির্দিষ্ট ডিভাইসে কোন একটি ফাইল রাখার ক্ষেত্রে আপনি যদি পুরোপুরি সুরক্ষিত অনুভব না করেন; তাহলে গুগোল ড্রাইভ আপনার জন্য এক বিশ্বস্ত সহযোগী।

গুগল ড্রাইভে যেকোন রকমের ডকুমেন্টস গুলো আপনার গুগল একাউন্টের মাধ্যমে সুরক্ষিত থাকে। যাতে করে আপনি গুগোল একাউন্ট ইন্টার করার মাধ্যমে আপনার ডকুমেন্টগুলো যেকোনো ডিভাইসের মাধ্যমে এক্সেস নিতে পারবেন।

Lastpass

আপনার যেকোন অ্যাকাউন্ট এক সর্বোচ্চ নিরাপত্তা হল আপনার একাউন্টের পাসওয়ার্ড।
আর পাসওয়ার্ড মনে রাখার ক্ষেত্রে আমরা অনেকেই প্রায় ব্যর্থ বললেও ভুল হবে না।

অনেক সময় এ রকম দেখা যায় বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের পাসওয়ার্ডগুলো আমরা মনে রাখতে পারি না এবং যখনই আমরা কোন একটি প্লাটফর্মে লগইন করতে যাই, তখন পাসওয়ার্ড রিসেট করার মাধ্যমে লগইন এর কাজ সম্পাদন করতে হয়।

তবে বারবার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করা বা এ সংক্রান্ত কাজগুলো যে কারো জন্য বিরক্তিকর হয়ে যেতে পারে।

আর এ কাজটি করার জন্য অ্যান্ড্রয়েডে এরকম একটি অ্যাপস রয়েছে। যে অ্যাপটির মাধ্যমে আপনি আপনার বিভিন্য প্ল্যাটফর্মের পাসওয়ার্ডগুলো স্টোরেজ করে রাখতে পারেন।

এছাড়াও আপনি এখানে যে সমস্ত পাসওয়ার্ডগুলো স্টোরেজ করে রাখবেন সে সমস্ত পাসওয়ার্ডগুলো পুরোপুরি সুরক্ষার সাথে এই অ্যাপসটিতে থাকবে।

আর আপনি যদি আপনার এন্ড্রয়েড ফোনে সমস্ত পাসওয়ার্ডগুলো সুরক্ষিতভাবে রাখতে চান তাহলে লাস্টপাস নামের যে সফটওয়্যার রয়েছে সেটি আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে ডাউনলোড করে রাখতে পারেন।

Touchtype swiftkey

আপনি যদি আপনার এন্ড্রয়েড ফোনের জন্য একটি সেরা কিবোর্ড এর অনুসন্ধান করে থাকেন তাহলে মাইক্রোসফ্ট সুইফট কী কীবোর্ড টি আপনার জন্য।

এই কিবোর্ড এর মাধ্যমে আপনি আপনার টাইপিং স্পিড বৃদ্ধি করতে পারবেন এছাড়াও বিভিন্ন রকমের ইমোজি এর সহযোগিতায় আপনার টাইপিং এর কাজ সম্পাদন করতে পারবেন।

মূলত এন্ড্রয়েড ফোনের সেরা যে সমস্ত কিবোর্ড রয়েছে, সে সমস্ত কিবোর্ড গুলোর মধ্যে থেকে এই কিবোর্ডটি একটি অনন্য জায়গা দখল করে রেখেছে। যা কম করে হলেও একবার ব্যবহার করে দেখা উচিত।

Nova Launcher

আপনার নির্দিষ্ট ডিভাইসের যে ডিফল্ট লাঞ্চার হয়েছে সে লঞ্চের টি ব্যবহার করতে করতে আপনি যদি বিরক্তি বোধ করেন, তাহলে নোভা লাঞ্চার আপনার জন্য যথেষ্ট।

এটি ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন রকমের ফিচারস উপভোগ করতে পারবেন এছাড়াও এ লঞ্চারটি একদম ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারবেন।

আর তাই সর্বাধিক ইউজার এক্সপেরিয়েন্স এবং এন্ড্রয়েড ফোন খুব ভালোভাবে মেনটেন করার জন্য আপনি যদি কোন রকমের লাঞ্চারের অনুসন্ধান করে থাকেন; তাহলে নোভা লাঞ্চার অবশ্যই একবার হলেও ব্যবহার করে দেখা উচিত।

আর এন্ড্রয়েড ফোনে ব্যবহার করার জন্য বাছাই করা যে সমস্ত সেরা এপস আপনার ফোনে ইন্সটল করা প্রয়োজন সেগুলো সম্পর্কে উপর আলোচনা করা হলো।

যে এন্ড্রয়েড সফটওয়্যারগুলো কম করে হলেও একবার আপনার ফোনে ব্যবহার করা উচিত।

একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন এবং কত টাকা খরচ হয়?

ওয়েবসাইট তৈরি

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা একটি নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করার চিন্তাভাবনা করছেন।

কিন্তু একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার চিন্তাভাবনা যখন আমাদের মধ্যে আসে তখনই আমাদের কাছে রীতিমতো একটা প্রশ্নই ঘুরপাক খায় আর সেটা হল একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে আসলে কি কি দরকার হয়? এবং একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে কত টাকা খরচ হয়?

আর আপনি যদি নতুন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান এবং এই ওয়েবসাইট তৈরি করার ক্ষেত্রে আপনার কত টাকা খরচ হবে এবং কি কি বিষয় বস্তুর প্রয়োজন হবে সে সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি দেখে নিন।

একটি ওয়েবসাইট কেন তৈরি করবেন?

আপনি যদি লেখালেখি করতে পছন্দ করেন কিংবা আপনি যদি মনে করেন আপনার মধ্যে যে কোনো রকমের একটি স্কিল রয়েছে, যা আপনি সবার কাছে শেয়ার করতে চান তাহলে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করার মাধ্যমে, আপনি যে সমস্ত স্কিল ইতিমধ্যে কালেক্ট করে রেখেছেন সেগুলো আপনি অন্যান্যদের মাঝে শেয়ার করতে পারেন।

এছাড়াও আপনি যখনই খুব বেশি পরিমাণে লেখালেখি করবেন তখন আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর এর পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে। আর ভিজিটর এর পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথেই আপনি গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল নিতে পারবেন।

যখনই গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল হয়ে যাবে তখন আপনি আপনার লেখা আর্টিকেল গুলোর মাধ্যমে খুব বেশি পরিমাণে টাকা আয় করতে পারবেন। এতে করে আপনার আর্টিকেল লেখার শখ পূরণ হবে এবং এরই পাশাপাশি আয় করতে পারবেন।

ওয়েবসাইট তৈরি করার কারণ জানার পরে এবার মুল টপিকে চলে আসা যাক। এবার জেনে নিন একটি সাইট তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন হয় এবং কত টাকা খরচ হয়?

একটি প্ল্যাটফর্ম নির্বাচন

ওয়েবসাইট তৈরি করার পূর্বে আপনাকে প্রথমত একটি প্লাটফর্ম নির্বাচন করতে হবে অর্থাৎ যে প্ল্যাটফর্মের অধীনে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান।

একটি নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য ইন্টারনেটের জগতে এরকম অনেক প্লাটফর্ম বিদ্যমান রয়েছে। এর মধ্যে থেকে অনেকগুলো প্লাটফর্মে আপনি ডোমেইন-হোষ্টিং ছাড়াই ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন এবং অনেক প্লাটফর্মে ডোমেইন-হোষ্টিং ক্রয় করে তৈরি করতে হবে।

আপনি যদি কোন রকমের ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করা ছাড়াই একটি ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান তাহলে blogger.com সাইন আপ করে ওয়েবসাইট তৈরী করে নিন।

এছাড়াও আপনি যদি অ্যাডভান্স লেভেলের এসইও করার মাধ্যমে আপনার কনটেন্ট গড়ে তুলতে চান ; তাহলে wordpress.org এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

তবে আপনি যদি ইন্টারনেটের জগতে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে blogger.com আপনার জন্য যথেষ্ট। এছাড়াও আপনি চাইলে wordpress.org আপনার বুকমার্কের লিস্টে রাখতে পারেন।

ডোমেইন নাম

আপনার ওয়েবসাইটের মূল সত্তা হল আপনার ওয়েবসাইটে ডোমেইন নাম।কারন যে কেউ আপনার ওয়েবসাইটকে মনে রাখবে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন নামের মাধ্যমে।

এছাড়াও আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইট থেকে পুরোপুরি ইউজার ফ্রেন্ডলি করে গড়ে তুলতে চান এবং আপনার মনের মত করে যেকোনো একটি নামে ওয়েবসাইট কে সাজাতে চান তাহলে অবশ্যই রিলেটেড একটি ডোমেইন ক্রয় করতে হবে

আর একটি ডোমেইন নাম ক্রয় করার জন্য খরচ বাবদ 1000 টাকা বা তার চেয়েও কম আসতে পারে; তবে আপনি চাইলে কোন ডোমেইন ক্রয় করার ছাড়া ফ্রি সাবডোমেইনে দ্বারা তৈরি করতে পারেন।

তবে এ ক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইট রেংকিং এ অনেকটা পিছিয়ে থাকার সম্ভাবনা থাকে। তাই একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার পূর্বেই একটি ডোমেইন ক্রয় করে নেয়া ভালো ; যা আপনার রেংকিং এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

এছাড়াও আপনি যদি ডোমেইন সম্পর্কে তেমন একটি ধারণা রাখেন; তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা আরেকটি আর্টিকেল এর মাধ্যমে ডোমেইন নাম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পারেন।

Read Now 

উপরে উল্লেখিত তথ্য অনুযায়ী আগে ডোমেইন নেমটি ভালোভাবে রিসার্চ করে নিন এবং তারপরে আপনার পছন্দ অনুসারে ভালো এবং বিশ্বস্ত কোম্পানি থেকে একটি ডোমেইন নাম ক্রয় করুন।

হোস্টিং ক্রয়

আপনি যদি blogger.com একটি সাইট তৈরি করেন তাহলে শুধুমাত্র ডোমেইন ক্রয় করলেই আপনি আপনার ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে রান করাতে পারবেন। কারণ ব্লগারে আনলিমিটেড হোস্টিং স্পেস গুগল দিয়ে থাকে।

তবে আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেসে একটি সাইট তৈরি করেন তাহলে আপনার নিজের থেকেই একটি হোস্টিং প্ল্যান করে করতে হবে; হোস্টিং প্ল্যান করার পূর্বে আপনাকে অনেকগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হয়।

হোস্টিং সম্পর্কে আপনার যদি কোন রকমের ধারণা না থাকে এবং হোস্টিং ক্রয় করার পূর্বে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হয় সেই সম্পর্কেও যদি ধারনা না থাকলে তাহলে নিম্নলিখিত আর্টিকেলটি দেখুন।

Read Now

উপরে উল্লেখিত আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনি হোস্টিং ক্রয় করার পূর্বে যে সমস্ত বিষয় গুলো নজর দিবেন সে সমস্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে জানতে পারবেন।

মূলত একটি ভালো হোস্টিং প্লান ক্রয় করার ক্ষেত্রে প্রতি বছরের জন্য সর্বনিম্ন 2 থেকে 3 হাজার টাকা আপনাকে ইনভেস্ট করতে হবে। তবে আপনার হোস্টিং এর সাইজ এবং স্টোরেজের পরিমাণ অনুসারে টাকার পরিমাণ কমবেশি হতে পারে।

তবে হোস্টিং ক্রয় করার ক্ষেত্রে সস্তা কোম্পানি এড়িয়ে চলুন; এরকম অনেক হোস্টিং প্রোভাইডার রয়েছে যারা আপনাকে একদম সুলভ মূল্যে হোস্টিং দিয়ে থাকবে। আর সেই সমস্ত প্রোভাইডার এর কাছ থেকে হোস্টিং ক্রয় করার পূর্বে তাদেরকে ভালোভাবে বিবেচনা করে নিন।

ওয়েবসাইট ইন্সটল এবং ডিজাইন

কিভাবে যে কোন প্লাটফর্মে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে এই ওয়েবসাইট থেকে ইন্সটল এবং ডিজাইন করা যায় সেই কাজটি করার জন্য আপনি চাইলে ডেভলপার নিয়োগ করতে পারেন।

এছাড়াও আপনি যদি খুবই তীক্ষ্ণ বুদ্ধি সম্পন্ন হয়ে থাকে, তাহলে ইউটিউবে বিভিন্ন ভিডিও দেখার মাধ্যমে আপনি ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এবং ইন্সটল এর কাজ সহজে সম্পাদন করতে পারবেন।

ইউটিউব এর মাধ্যমে আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের ডেভেলপমেন্ট এবং ডিজাইন এর কাজ সম্পাদন করতে চান তাহলে প্রথমত আপনাকে ওয়েবসাইটের সমস্যার কথা চিন্তা করতে হবে এবং তার পরে এই সমস্যাটি ইউটিউবে সার্চ করার মাধ্যমে সমাধান নিতে হবে।

ওয়েবসাইট তৈরি করতে পরিপূর্ণ খরচ

একটি সাইট তৈরি করতে পরিপূর্ণ খরচ বাবদ আপনাকে পাঁচ হাজার টাকা থেকে শুরু করে 30 হাজার টাকার মতো খরচ হয়ে যেতে পারে; টাকা খরচ হওয়ার পরিমাণ কমবেশি হবে আপনার প্রয়োজনের উপর।

অর্থাৎ আপনি যদি ওয়েবসাইট ডিজাইন কাস্টমাইজ করতে ডেভলপার নিয়োগ দেন তাহলে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে বেশি পরিমাণে টাকা খরচ হবে; অন্যতায় স্বল্প টাকায় এই কাজটি করা সম্ভব।

আর্টিকেল এর অন পেজ এসইও এর কাজ করুন এই টুলস এর সাহায্যে |

অন পেজ এসইও

আপনার ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা প্রত্যেকটি কনটেন্টকে পুরোপুরি এসইও ফ্রেন্ডলি এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি করে গড়ে তোলার জন্য বিভিন্ন ফ্রী টুলস ইন্টারনেটের জগতে বিদ্যমান রয়েছে।

এই সমস্ত ফ্রী টুলস গুলো মাধ্যমে আপনি আপনার কনটেন্ট এর অন পেজ এসইও এর কাজ খুবই সহজে করতে পারেন; যাতে করে রেংকিং এর ক্ষেত্রে আপনার আর্টিকেলটি ভালো পারফরম্যান্স করতে পারে।

আর এই পোস্টটিতে আলোচনা করা হবে আপনার আর্টিকেল এর অন পেজ এসইও এর কাজ করার জন্য যে সমস্ত ফ্রী টুলস বিদ্যমান রয়েছে সে সমস্ত ফ্রী টুলস সম্পর্কে।

Plagiarism Checker

আপনার ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা কোন আর্টিকেল এর মধ্যে কপিরাইট সংক্রান্ত বিষয়াদি রয়েছে কিনা সেই বিষয়টিকে আপনি প্লাগারিজম চেকার টুলস এর মাধ্যমে দেখে নিতে পারেন।

যেকোনো একটি প্লাগারিজম চেকার টুলস এর মধ্যে যখনই আপনি আপনার কনটেন্ট পেস্ট করে দিবেন; তখনই আপনার কনটেন্ট এর মধ্যে কতগুলো কপিরাইট ইস্যু রয়েছে সেগুলো দেখে নিতে পারবেন।

আর আপনি যদি আপনার আর্টিকেল এর প্লেগারিজম চেক করতে চান আর এই প্লাগারিজম চেক করার মত ফ্রী টুলস এর অনুসন্ধান করে থাকেন; তাহলে নিচে উল্লেখিত ফ্রী টুল ব্যবহার করতে পারেন।

  1. DupliChecker
  2. Paperrater
  3. Plagiarisma

উপরে উল্লেখিত প্রত্যেকটি প্লেগারিজম চেকার টুলস একদম ফ্রিতে আপনি ব্যবহার করতে পারবেন; তবে ফ্রিতে এই টুলস গুলো ব্যবহার করার ক্ষেত্রে কিছু লিমিটেশন অবশ্যই থাকবে।

Grammar Checker

আপনি যদি ইংরেজিতে কনটেন্ট পাবলিশ করেন, তাহলে এই সমস্ত কনটেন্টগুলো গ্রামাটিক্যাল মিসটেক সমাধান করার জন্য বিভিন্ন ফ্রী টুলস ব্যবহার করতে পারেন।

আপনার পাবলিশ করা আর্টিকেল এর সমস্ত গ্রামাটিক্যাল মিস্টেক চেক করার জন্য যে সমস্ত ফ্রী অ্যাপস কিংবা টুলস রয়েছে, সেগুলোর মধ্যে থেকে গ্রামারলি অ্যাপস টি খুবই প্রয়োজনীয়।

আপনি যদি ডেক্সটপ কিংবা পিসি থেকে থাকে তাহলে আপনি গ্রামারলি অ্যাপসটির গুগল ক্রোম এক্সটেনশন আপনার পিসিতে ইন্সটল করে রাখতে পারেন। যাদের করে প্রত্যেকটি আর্টিকেল অটোমেটিকলি গ্রামাটিক্যাল এরর থেকে মুক্ত হতে পারে।

Grammarly Extention

উপরে উল্লেখিত লিংকে ভিজিট করার মাধ্যমে আপনি গ্রামারলি গুগল ক্রোম এক্সটেনশন রয়েছে, সেটি গুগল ক্রোমে ইন্সটল করে রেখে দিতে পারবেন এবং একাউন্ট তৈরি করার মাধ্যমে ফ্রিতে এটি ব্যবহার করতে পারবেন।

Image Compressor

আপনার পাবলিশ করা আর্টিকেল এর মধ্যে আপনি যে সমস্ত ইমেজ ব্যবহার করবেন, সে সমস্ত ইমেজগুলো আপনার ওয়েবসাইটের লোডিং স্পীড এর ক্ষেত্রে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।

তবে আপনি যদি ইমেজ কম্প্রেশ্বর নামের যে সমস্ত টুলস রয়েছে সেগুলো দিয়ে আপনার ব্যবহৃত ইমেজের সাইজ কমিয়ে আনেন, তাহলে এগুলো লোডিং স্পিডে কোনরকমে বিরূপ প্রভাব ফেলবে না।

ইন্টারনেটের জগতে যে সমস্ত ফ্রী ইমেজ কম্প্রেশ্বর টুলস রয়েছে সে সমস্ত টুলস গুলোর মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি টুলস এর লিংক নিচে দেয়া হল যেগুলো আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

JPEG Optimizer

Optimizilla

ImageRecycle

Article length

আপনার ওয়েব সাইটে আপনি যে আর্টিকেল পাবলিশ করবেন, সেই আর্টিকেল ওয়ার্ড সংখ্যা কতটুকু হয়েছে কিংবা এর এর মধ্যে আপনি কতটি প্যারাগ্রাফ যুক্ত করেছেন, সেই সম্পর্কে একটি টুলস এর মাধ্যমে জেনে নিতে পারেন।

আপনার পাবলিশ করা আর্টিকেল এর মধ্যে কতগুলো ওয়ার্ড যুক্ত করেছে, সেই সম্পর্কে আপনি যদি নিম্নলিখিত ফ্রী টুলস টি ব্যবহার করতে পারেন।

Visit and check

উপরে উল্লেখিত ফ্রী টুলস এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই যে কোনো রকমের আর্টিকেল এর প্যারাগ্রাফ এবং ওয়ার্ড সংখ্যা দেখে নিতে পারবেন।

আর উপরে উল্লেখিত টুলসগুলো সহযোগিতায় আপনি আপনার যে কোন আর্টিকেল এর অন পেজ এসইও এর কাজ সহজেই করে ফেলতে পারবেন; তাহলে আর দেরি না করে এখুনি উপরে উল্লেখিত ফ্রী টুলস গুলো ব্যবহার করুন।

error: Content is protected !!