একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন এবং কত টাকা খরচ হয়?

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা একটি নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করার চিন্তাভাবনা করছেন।

কিন্তু একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার চিন্তাভাবনা যখন আমাদের মধ্যে আসে তখনই আমাদের কাছে রীতিমতো একটা প্রশ্নই ঘুরপাক খায় আর সেটা হল একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে আসলে কি কি দরকার হয়? এবং একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে কত টাকা খরচ হয়?

আর আপনি যদি নতুন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান এবং এই ওয়েবসাইট তৈরি করার ক্ষেত্রে আপনার কত টাকা খরচ হবে এবং কি কি বিষয় বস্তুর প্রয়োজন হবে সে সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি দেখে নিন।

একটি ওয়েবসাইট কেন তৈরি করবেন?

আপনি যদি লেখালেখি করতে পছন্দ করেন কিংবা আপনি যদি মনে করেন আপনার মধ্যে যে কোনো রকমের একটি স্কিল রয়েছে, যা আপনি সবার কাছে শেয়ার করতে চান তাহলে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করার মাধ্যমে, আপনি যে সমস্ত স্কিল ইতিমধ্যে কালেক্ট করে রেখেছেন সেগুলো আপনি অন্যান্যদের মাঝে শেয়ার করতে পারেন।

এছাড়াও আপনি যখনই খুব বেশি পরিমাণে লেখালেখি করবেন তখন আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর এর পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে। আর ভিজিটর এর পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথেই আপনি গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল নিতে পারবেন।

যখনই গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল হয়ে যাবে তখন আপনি আপনার লেখা আর্টিকেল গুলোর মাধ্যমে খুব বেশি পরিমাণে টাকা আয় করতে পারবেন। এতে করে আপনার আর্টিকেল লেখার শখ পূরণ হবে এবং এরই পাশাপাশি আয় করতে পারবেন।

ওয়েবসাইট তৈরি করার কারণ জানার পরে এবার মুল টপিকে চলে আসা যাক। এবার জেনে নিন একটি সাইট তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন হয় এবং কত টাকা খরচ হয়?

একটি প্ল্যাটফর্ম নির্বাচন

ওয়েবসাইট তৈরি করার পূর্বে আপনাকে প্রথমত একটি প্লাটফর্ম নির্বাচন করতে হবে অর্থাৎ যে প্ল্যাটফর্মের অধীনে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান।

একটি নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য ইন্টারনেটের জগতে এরকম অনেক প্লাটফর্ম বিদ্যমান রয়েছে। এর মধ্যে থেকে অনেকগুলো প্লাটফর্মে আপনি ডোমেইন-হোষ্টিং ছাড়াই ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন এবং অনেক প্লাটফর্মে ডোমেইন-হোষ্টিং ক্রয় করে তৈরি করতে হবে।

আপনি যদি কোন রকমের ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করা ছাড়াই একটি ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান তাহলে blogger.com সাইন আপ করে ওয়েবসাইট তৈরী করে নিন।

এছাড়াও আপনি যদি অ্যাডভান্স লেভেলের এসইও করার মাধ্যমে আপনার কনটেন্ট গড়ে তুলতে চান ; তাহলে wordpress.org এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

তবে আপনি যদি ইন্টারনেটের জগতে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে blogger.com আপনার জন্য যথেষ্ট। এছাড়াও আপনি চাইলে wordpress.org আপনার বুকমার্কের লিস্টে রাখতে পারেন।

ডোমেইন নাম

আপনার ওয়েবসাইটের মূল সত্তা হল আপনার ওয়েবসাইটে ডোমেইন নাম।কারন যে কেউ আপনার ওয়েবসাইটকে মনে রাখবে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন নামের মাধ্যমে।

এছাড়াও আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইট থেকে পুরোপুরি ইউজার ফ্রেন্ডলি করে গড়ে তুলতে চান এবং আপনার মনের মত করে যেকোনো একটি নামে ওয়েবসাইট কে সাজাতে চান তাহলে অবশ্যই রিলেটেড একটি ডোমেইন ক্রয় করতে হবে

আর একটি ডোমেইন নাম ক্রয় করার জন্য খরচ বাবদ 1000 টাকা বা তার চেয়েও কম আসতে পারে; তবে আপনি চাইলে কোন ডোমেইন ক্রয় করার ছাড়া ফ্রি সাবডোমেইনে দ্বারা তৈরি করতে পারেন।

তবে এ ক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইট রেংকিং এ অনেকটা পিছিয়ে থাকার সম্ভাবনা থাকে। তাই একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার পূর্বেই একটি ডোমেইন ক্রয় করে নেয়া ভালো ; যা আপনার রেংকিং এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

এছাড়াও আপনি যদি ডোমেইন সম্পর্কে তেমন একটি ধারণা রাখেন; তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা আরেকটি আর্টিকেল এর মাধ্যমে ডোমেইন নাম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পারেন।

Read Now 

উপরে উল্লেখিত তথ্য অনুযায়ী আগে ডোমেইন নেমটি ভালোভাবে রিসার্চ করে নিন এবং তারপরে আপনার পছন্দ অনুসারে ভালো এবং বিশ্বস্ত কোম্পানি থেকে একটি ডোমেইন নাম ক্রয় করুন।

হোস্টিং ক্রয়

আপনি যদি blogger.com একটি সাইট তৈরি করেন তাহলে শুধুমাত্র ডোমেইন ক্রয় করলেই আপনি আপনার ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে রান করাতে পারবেন। কারণ ব্লগারে আনলিমিটেড হোস্টিং স্পেস গুগল দিয়ে থাকে।

তবে আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেসে একটি সাইট তৈরি করেন তাহলে আপনার নিজের থেকেই একটি হোস্টিং প্ল্যান করে করতে হবে; হোস্টিং প্ল্যান করার পূর্বে আপনাকে অনেকগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হয়।

হোস্টিং সম্পর্কে আপনার যদি কোন রকমের ধারণা না থাকে এবং হোস্টিং ক্রয় করার পূর্বে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হয় সেই সম্পর্কেও যদি ধারনা না থাকলে তাহলে নিম্নলিখিত আর্টিকেলটি দেখুন।

Read Now

উপরে উল্লেখিত আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনি হোস্টিং ক্রয় করার পূর্বে যে সমস্ত বিষয় গুলো নজর দিবেন সে সমস্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে জানতে পারবেন।

মূলত একটি ভালো হোস্টিং প্লান ক্রয় করার ক্ষেত্রে প্রতি বছরের জন্য সর্বনিম্ন 2 থেকে 3 হাজার টাকা আপনাকে ইনভেস্ট করতে হবে। তবে আপনার হোস্টিং এর সাইজ এবং স্টোরেজের পরিমাণ অনুসারে টাকার পরিমাণ কমবেশি হতে পারে।

তবে হোস্টিং ক্রয় করার ক্ষেত্রে সস্তা কোম্পানি এড়িয়ে চলুন; এরকম অনেক হোস্টিং প্রোভাইডার রয়েছে যারা আপনাকে একদম সুলভ মূল্যে হোস্টিং দিয়ে থাকবে। আর সেই সমস্ত প্রোভাইডার এর কাছ থেকে হোস্টিং ক্রয় করার পূর্বে তাদেরকে ভালোভাবে বিবেচনা করে নিন।

ওয়েবসাইট ইন্সটল এবং ডিজাইন

কিভাবে যে কোন প্লাটফর্মে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে এই ওয়েবসাইট থেকে ইন্সটল এবং ডিজাইন করা যায় সেই কাজটি করার জন্য আপনি চাইলে ডেভলপার নিয়োগ করতে পারেন।

এছাড়াও আপনি যদি খুবই তীক্ষ্ণ বুদ্ধি সম্পন্ন হয়ে থাকে, তাহলে ইউটিউবে বিভিন্ন ভিডিও দেখার মাধ্যমে আপনি ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এবং ইন্সটল এর কাজ সহজে সম্পাদন করতে পারবেন।

ইউটিউব এর মাধ্যমে আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের ডেভেলপমেন্ট এবং ডিজাইন এর কাজ সম্পাদন করতে চান তাহলে প্রথমত আপনাকে ওয়েবসাইটের সমস্যার কথা চিন্তা করতে হবে এবং তার পরে এই সমস্যাটি ইউটিউবে সার্চ করার মাধ্যমে সমাধান নিতে হবে।

ওয়েবসাইট তৈরি করতে পরিপূর্ণ খরচ

একটি সাইট তৈরি করতে পরিপূর্ণ খরচ বাবদ আপনাকে পাঁচ হাজার টাকা থেকে শুরু করে 30 হাজার টাকার মতো খরচ হয়ে যেতে পারে; টাকা খরচ হওয়ার পরিমাণ কমবেশি হবে আপনার প্রয়োজনের উপর।

অর্থাৎ আপনি যদি ওয়েবসাইট ডিজাইন কাস্টমাইজ করতে ডেভলপার নিয়োগ দেন তাহলে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে বেশি পরিমাণে টাকা খরচ হবে; অন্যতায় স্বল্প টাকায় এই কাজটি করা সম্ভব।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close
Scroll to Top