এলার্জির ঔষধ বেশি খেলে কি হয়? এলার্জির ঔষধ খাওয়ার নিয়ম

আমাদের মধ্যে যে বা যারা এলার্জি জনিত সমস্যার মধ্যে ভোগেন৷ তারা এলার্জিজনিত ঔষধ খাওয়ার পরে এরকম এটা জানতে চান যে, এলার্জির ঔষধ বেশি খেলে কি হয়?

এলার্জির ঔষধ বেশি খেলে কি হয়? এই সম্পর্কে আপনি যদি বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে চান, তাহলে এই আর্টিকেলটি দেখে নিতে পারেন।

আজকের এই আর্টিকেল আলোচনা করা হবে, এলার্জির ঔষধ বেশি খেলে কি হয়? সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সম্পর্কে।

এলার্জির ঔষধ বেশি খেলে কি হয়?

এখানে প্রথমে একটি কথা বলে রাখা ভালো আর সেটি হলো, আপনি হয়তো এই সম্পর্কে অবগত আছেন যে যেকোনো কিছুই খুব বেশি পরিমাণে করা ভালো নয়।

সেটা হোক ঔষধ কিংবা অন্য যে কোনকিছু।

যেহেতু, এলার্জি ঔষধ একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ সেবন করা প্রায় সমস্ত রোগীদের জন্য বাধ্যতামূলক। সেজন্য আপনি যদি এই ঔষধটি বেশি পরিমাণে পান করেন, তাহলে সেটি আপনার শরীরের জন্য হানিকারক হতে পারে।

কোন কারণে আপনি যদি এলার্জির ঔষধ বেশি খেয়ে ফেলেন, তাহলে সেটি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিবে এবং এটি কাজ করার বিপরীতে আপনার শরীরের অঘঠন ঘটাতে পারে।

সেক্ষেত্রে এলার্জির ঔষধ খাওয়ার যে নিয়ম রয়েছে, সেই নিয়ম মাফিক আপনাকে ওষুধ খেতে হবে।

অন্যথায়, সেটি আপনার শরীরে পার্শপ্রতিক্রিয়া কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

আপনি যদি খুব বেশি পরিমাণে ঔষধ সেবন করে থাকেন, তাহলে নিম্নলিখিত সমস্যাগুলো হতে পারে।

  • কোষ্ঠকাঠিন্য হৃদস্পন্দনের গতি বেড়ে যাওয়া।
  • গলা-মুখ শুকিয়ে যাওয়া।
  • মূত্রত্যাগের সমস্যা।
  • এমনকি প্রেসার অস্বাভাবিকভাবে কমে যেতে পারে।

উপরে উল্লেখিত সমস্যাগুলো ছাড়াও আরও বিভিন্ন রকমের সমস্যার সম্মুখীন আপনি হতে পারেন।

এবার আপনি যদি এলার্জির ঔষধ খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জেনে নিতে চান, তাহলে নিম্নলিখিত তথ্যগুলো কালেক্ট করে নিতে পারেন।

এলার্জির ওষুধ খাওয়ার নিয়ম

বিভিন্ন বয়সের রোগীর জন্য বিভিন্ন রকমের ঔষধ এর পরিমাণ সেবনযোগ্য। সেজন্য আপনাকে আপনার বয়স অনুযায়ী ঔষধ এর পরিমাণ নির্ধারণ করে নিতে হবে।

তবে নিচে কি কি বয়সের লোকদের জন্য কি কি পরিমাণ এর ঔষধ সেবন করা বাঞ্ছনীয়, সেই সম্পর্কে একটি ধারণা দেয়া হলো।

  • ট্যাবলেটঃ প্রাপ্ত বয়স্ক এবং ১২ বছরের বেশী বয়সের শিশুদের জন্য দৈনিক দুইটি করে  ৬০ মি.গ্রা. ট্যাবলেট অথবা দৈনিক একটি করে ফেক্সো ১৮০ মি.গ্রা. ট্যাবলেট।
  • ৬ থেকে ১১ বছর বয়সের শিশুদের জন্য দৈনিক দুইবার করে ৩০ মি.গ্রা. ফেক্সোফেনাডিন অথবা দৈনিক একটি  ৬০ মি.গ্রা. ট্যাবলেট।
  • ওরাল সাসপেনশন: ২-১১ বছর বয়সের শিশুদের জন্য দৈনিক ২ বার করে ৩০
  • মি.গ্রা. (৫ মি.লি.) সাসপেনশন সেব্য।
  • ২-১১ বছর বয়সের শিশুদের জন্য দৈনিক ২ বার করে ৩০ মি.গ্রা. (৫ মি.লি.) সাসপেনশন সেব্য।
  • ৬ মাস থেকে ২ বছরের কম বয়সের শিশুদের জন্য দৈনিক ২ বার করে ১৫ মি.গ্রা. (২.৫ মি.লি.) সাসপেনশন সেব্য।

উপরে যে সময়সীমা এবং বয়সের কথা মেনশন করা হয়েছে, সেই সমস্ত বয়সসীমার লোকজন চাইলে এই পরীমানে ঔষধ সেবন করতে পারেন।

তবে এই ওষুধ সেবন করার পূর্বে অবশ্যই অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন।

অন্যথায়, সেটি আপনার শরীরের ক্ষতির কারন হতে পারে।

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap